Wednesday , January 17 2018
Home / রাজনীতি / তত্ত্বাবধায়ক সরকার আবার আসুক তা জনগণ চায় না : হানিফ

তত্ত্বাবধায়ক সরকার আবার আসুক তা জনগণ চায় না : হানিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক : তত্ত্বাবধায়ক সরকার আসার আর কোনো সুযোগ নেই। সেটা জনগণ গ্রহণ করেনি তা প্রমাণ হয়েছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে আবার সুযোগ দেওয়া হোক তা জনগণ চায় না। বাংলাদেশের জনগণ স্পষ্ট যে বাংলাদেশে কোনো অসংবিধানিক পন্থায় ক্ষমতায় আসবে না। সকল দলই যদি সংবিধান অনুযায়ী চলে তাহলে কোনো রকম সমস্যা হবার কথা নয়।

ওয়ান ইলেভেনের মতো আবার যাতে গুরুতর পরিস্থিতি না হয় সে বিষয়ে আওয়ামী লীগ কতটা সচেতন?
এমন প্রশ্নের জবাবে বিবিসি বাংলার এক সাক্ষাতকারে মাহবুবুল হক হানিফ এই্ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুল হক হানিফের কাছে প্রশ্ন ছিলো আজকের ওয়ান ইলেভেনের দিনটিকে তারা কিভাবে দেখেন? তাদের দলে কতটুকু প্রভাব পড়েছে?

জবাবে তিনি বলেন, ২০০৬ সালে বিএনপি’র ক্ষমতার মেয়াদ শেষে হয়। খালেদা জিয়ার দুর্নীতি, অনিয়ম এবং বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যকলাপের কারণে, জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির নিশ্চিত পরাজয় ভেবে সেই আশঙ্কা থেকে নির্বাচনে নাশকতাই তাদের পরাজয়ের কারণ হয়। তবে একটি দিক পরিষ্কার ছিল, যে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় কোনো সরকারই তার কার্যকর ভূমিকা জনগণের কাছে সার্বিকভাবে পালন করতে পারেনি। সংবিধানকে সামনে রেখে যদি সরকার গঠিত হয় তহলে আর কখনোই অসংবিধানিক সরকার আসার সুযোগ পাবেন না বলেন তিনি।

ওয়ান ইলেভেনের সময় সরকার এসে দুই বছর ক্ষমতার ছিল এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকার নানা রাজনৈতিক,সামাজিক, অর্থনৈতিক ও অন্যান্য পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আয়োজনে একটি নির্বাচনের পর বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ক্ষমতা গ্রহণ করে। এর পর আর একবার ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ।
রাজনৈতিক দল হিসেবে কি কোনো পরিবর্তন এসেছে? এমন প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, নির্বাচনে সে রকম কোনো প্রভাব পড়বে বলে তিনি মনে করেন না।

ওয়ান ইলেভেনে যে ঘটনা ঘটেছিল অনেকেই মনে করেন বাংলাদেশের বড় দুইটি রাজনৈতিক দলের মত ভিন্নতার করণেই সেই পরিস্থিতির তৈরি হয়েছিল। সেটা কী রাজনীতিবিদদের ব্যর্থতা?

জবাবে হানিফ বলেন, কিছু রাজনীতিবিদদের কারণে মতের বিরোধিতা তৈরি হয় এমনটি তিনি কনে করেন না। সেই সময় যারা ক্ষমতায় ছিল বিএনপি, জামায়াত তাদের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিএনপি অসংবিধানিক একটি দল হিসেবে ক্ষমতায় আসে।

সেই সময় আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে ছিল আর বর্তমানে আপনারাই ক্ষমতাসীন দল। সামনে যে জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে সেই নির্বাচন নিয়েও মতের ভিন্নতা আছে। আওয়ামী লীগ বলছে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হওয়া উচিত। আর বিএনপি’র দাবি তারা একটি নির্দলীয় সরকারের অধীনে একটি নির্বাচনে যেতে চায়।

Check Also

নির্বাচনকালীন সরকারে ‘বিএনপির জায়গা হবে না’: তোফায়েল

নিজস্ব প্রতিবেদক: এই সরকারই ‘নির্বাচনকালীন’ সরকার, এতে বিএনপির জায়গা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *