Wednesday , January 17 2018
Home / ঙ্ক্রাইম এক্সপ্রেস / তানোরে যুবদল নেতা নান্নু ফেরারি

তানোরে যুবদল নেতা নান্নু ফেরারি

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি
রাজশাহীর তানোর উপজেলা ছাত্রদলের (সাবেক) ও রাজশাহী জেলা যুবদলের নেতা আহসান হাবিব ওরফে নান্নু চেকের মামলাসহ আরো একাধিক মামলায় (পলাতক) ফেরারী হয়েছেন বলে নিশ্চিত করে করেছেন তানোর থানা পুলিশ। উপজেলার সরনজাই ইউপির কাসারদিঘী গ্রামের ইয়াদ আলীর পুত্র নান্নু। এদিকে নান্নুর ফেরারী হবার খবর জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যর সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ সূত্র জানায়, আহসান হাবিব ওরফে নান্নুর বিরুদ্ধে চেকের দুটি ও টাকা আত্মসাতের একাধিক মামলায় থাকায় দীর্ঘ দিন ধরে তিনি ফেরারী রয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এএসআই (দারোগা) শরিফ। দীর্ঘদিন ধরে তার বাড়ীসহ রাজশাহী শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান করেও নান্নুর হদিস করতে পারছেন না পুলিশ।
জানা গেছে, রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট ইসলামী ব্যাংক থেকে বড় অঙ্কের ঋণ নিয়ে তা পরিশোধ না করে দীর্ঘদিন ধরে পালিয়ে রয়েছেন। একাধিক বার তাগাদা দিয়েও ঋণের কিস্তি পরিশোধ না করায় ইসলামী ব্যাংক কেশরহাট শাখা আদালতে নান্নুর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। কিšত্ত মামলার পরেও তিনি ঋণ পরিশোধ বা হাজিরা না দেয়ায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। সূত্র জানায়, দায়রা – ১২২৪/ ২০১৬ সিআর মামলা নম্বর ২৩১/১৬ (মোহনপুর)।  ২৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা পরিশোধের আদেশ দিয়েছেন। অন্যদিকে বিগত ২০১৫ সালে নান্নুর বিরুদ্ধে আরেকটি চেকের মামলা করেন সরনজাই বাজারের হাজী মহাসিনের পুত্র কাজী আফজাল হোসেন। এই মামলাতেও হাজিরা না দেয়ায় আদালত তার বিরুদ্ধে এক বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ২৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা পরিশোধের জন্য আদেশ দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এএসআই (দারোগা) শরিফ। যহার মামলা নম্বর ৬০৩/ ১৫ । এছাড়াও আরেকটি জালিয়াতি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানাসহ তার বিরুদ্ধে একাধিক জালিয়াতি মামলা চলমান রয়েছে বলে জানান মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এএসআই (দারোগা) শরিফ। এসব বিষয়ে জানতে ইসলামী ব্যাংক কেশর হাট শাখার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানান নান্নু ঋণ নিয়ে ভুয়া চেক দিয়েছেন। এমনকি ঋণ গ্রহণের পর থেকে ঋণের কোন কিস্তি পরিশোধ না করেই ব্যাংকের সঙ্গে সব ধরণের যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছেন নান্নু। আবার তাঁর দেয়া চেকের বিপরীতে কোনো অর্থ জমা নাই। একাধিক বার নোটিশ ও তাগাদা দিয়েও তার কোন হুদিস মিলেনি ফলে বাধ্য হয়ে মামলা করা হয়। আমরা গ্রাহক সেবা দিতে এসেছি গ্রাহকের বিরুদ্ধে কেন মামলা হবে সে একজন বড় মাপের প্রতারক। এব্যাপারে কাজী আফজাল জানান, আহসান হাবিব ওরফে নান্নু এতবড় প্রতারক তা তার জানা ছিল না। সে তার কাছে টাকা চাওয়া মাত্রই দিয়েছেন, কিন্তু একাধিক বার বলেও টাকা ফেরত দেননি। ফলে বাধ্য হয়ে মামলা করতে হয়েছে। এব্যাপারে একাধিকার আহসান হাবিব ওরফে নান্নুর ব্যক্তিগত কয়েকটি মুঠোফোন নম্বরে ফোন দেয়া হলেও বন্ধ পাওয়া গেছে। ফলে তার কোনো বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এএসআই (দারোগা) শরিফ জানান, শুনেছি নান্নু রাজশাহীর উপশহর এলাকায় থাকেন সেখানেও একাধিকবার হানা দিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। কখন কোন নম্বর ব্যবহার করেন বুঝা মুসকিল। এব্যাপারে তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল ইসলাম জানান, দুটি মামলায় নান্নুর সাজা হয়েছে ও কয়েকটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। তিনি বলেন, তাকে গ্রেপ্তারের জন্য জোর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে তাকে ধরা পড়তেই হবে।#

Check Also

দুই খলনায়কের ফাঁসি কবে

নিজস্ব প্রতিবেদক; আজ ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। জাতির ইতিহাসে বেদনাদায়ক একটি দিন। ১৯৭১ সালের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *